মঙ্গলবার, ১৮ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১২ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি
মঙ্গলবার, ১৮ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১২ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

শীতে ত্বকের যত্ন নেবেন যেভাবে

উত্তরবঙ্গের সংবাদ ডেস্কঃ

শীতে ত্বকের যত্ন গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। অনেকের জন্যই শীতকাল অনেক সুখকর ব্যাপার নিয়ে আসলেও শরীরের ত্বকের জন্য শীতকাল মোটেও সুখকর নয়। শীত মানেই শুষ্ক ত্বকের সমস্যা। এই সময় ত্বক হয়ে পড়ে বেশি স্পর্শকাতর, খসখসে ও প্রাণহীন। নভেম্বর মাস সবে শুরু হলেও ইতোমধ্যেই অনেকের ত্বকে শীতকালীন সমস্যা দেখা দিতে শুরু করেছে।

সারাবছর ত্বক নিয়ে খুব একটা সমস্যা না হলেও শীতকালে আমরা ত্বক নিয়ে সবচেয়ে বিড়ম্বনায় পড়ি। শীতকালে ত্বকের যত্ন নেওয়া খুব জরুরি। কিন্তু কীভাবে আপনি ঘরোয়াভাবেই শীতকালে ত্বকের যত্ন নিতে পারেন? চলুন জেনে নেওয়া যাক।

শীতে ত্বকের যত্ন খুব গুরুত্বপূর্ণ

১. সানস্ক্রিন ব্যবহার করতে ভুলবেন না যেন

শুধু গরম কালে নয়, শীতকালেও সূর্যের ইউভি রশ্মির প্রভাব বেশ ভালই থাকে। তাতে ত্বকের নানা ক্ষতি হতে পারে। সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মির প্রভাবে পিগমেন্টেশন, ট্যান, টান-টান ভাব ইত্যাদির সমস্যা দেখা যায়। তাই শীতকালে বাড়ির বাইরে বের হলেই SPF 30 ও PA+++ সহ সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন।

২. হাল্কা গরম পানিতে ত্বক ধোয়ার অভ্যাস করুন

শীতে গরম পানিতে গোসল করা একি সাথে আরামদায়ক এবং ত্বকের জন্য বিশেষ জরুরি। হট শাওয়ার বা গরম পানিতে গোসল ছাড়াও মুখ ও হাত-পা ধুতে ব্যবহার করুন হাল্কা গরম পানি। এতে আপনার ত্বকের কোষ গুলো সজাগ হয়ে উঠবে এবং ত্বকে জমে থাকা বাড়তি ময়লা বা তৈলাক্ত দ্রব্য বেড়িয়ে আসবে।

৩. ময়েশ্চারাইজার

শরীরের তুলনায় মুখের ত্বকে কম তেলগ্রন্থি থাকে, তাই ডিহাইড্রেশনের সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি হয়। ল্যানোলিন, শিয়া বাটার, পেট্রোলিয়াম জেল, হায়ালুরোনিক অ্যাসিড-যুক্ত ময়েশ্চারাইজারগুলি এই আবহাওয়ায় ব্যবহার করুন।

৪. ফেস মাস্ক

এই সময় ত্বককে শান্ত, কোমল, ময়েশ্চারাইজড করে তোলার জন্য পছন্দ মত ফেসমাস্ক প্রয়োগ করতে পারেন। তবে তাতে যেন হাইলুরোনিক অ্যাসিড ও ভিটামিন সি থাকে, তা একবার দেখে নেওয়া উচিত। তাতে ত্বক থাকে উজ্জ্বল ও আর্দ্র।

৫. পরিবেশ আর্দ্র রাখুন বা আর্দ্র পরিবেশে থাকুন

শীতে খোলা জায়গায় বেশি সময় আড্ডা বা কাজ না করে বেছে নিন এমন জায়গা যেখানে হিমবায়ু কাবু করতে পারবে না আপনাকে। অনেকেই ঘরের হাওয়া গরম রাখতে হিটিং সিস্টেম ব্যবহার করে থাকেন যা আসলে বাতাসকে শুষ্ক করে দেয়। ঘরে আর্দ্র পরিবেশ বজায় রাখতে ইন্টারনেট থেকে কিনে নিতে পারেন কোনো Humidifier জাতীয় যন্ত্র।

৬. পানীয় বা ড্রিংকসে সচেতন হোন

শীতে সাধারণত এম্নিতেই কম পরিমাণে পানি পান করা হয়। চা, কফি বা অন্যান্য গরম পানির প্রতি থাকে বেশি ঝোঁক। কিন্তু দেহের বা ত্বকের সতেজতা বজায় রাখতে চাই দেহের ভিতর থেকে সজীবতা। পর্যাপ্ত পরিমানে পানি পান করুন। হাল্কা গরম পানির সাথে কয়েক ফোটা লেবুর রস শরীরের হাইড্রেশনে প্রচুর কার্যকরী।

৭. ত্বক মাসাজ করুন

শীতকালে দেহের অনেক কোষ মারা যায় যাদের ডেড সেল বলা হয়। হাত দিয়ে আলতোভাবে মাসাজ করে করে এই ডেড সেলগুলি সরিয়ে ফেলুন। এই সেল গুলি থাকলে আপনার ত্বক সঠিক ময়েসচার পাবে না। এছাড়া ডেড সেল সরাতে ব্যবহার করতে পারুন কোনো এক্সফলিয়েট মাস্ক। মাসাজে গুরুত্ব দিন হাত, মুখ ও ঠোঁটের ত্বকে। এ ধরণের মাসাজ শীতকালে খুব কার্যকরী।

৮. খাবারে সচেতন হোন

জলীয় উপাদান সমৃদ্ধ খাবার, শাকসবজি ও ফল যেমন: স্যুপ, কমলা, আপেল, তরমুজ, শসা, টমেটো, গাজর এগুলো বেশি করে খান। নিশ্চিত করুন আপনি পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন সি ও জিংক গ্রহণ করছেন যাতে শরীরে কোলাজেন ও ইলাস্টিন উৎপন্ন হয়। এছাড়া ওমেগা-৩ সমৃদ্ধ খাবার ও ফ্যাটযুক্ত মাছ গ্রহণ করুন।

৯. ব্যবহার করুন নিজ হাতে বানানো সল্যুশন

নিজ হাতে বানানো বিভিন্ন হাইড্রেটিং মাস্ক ব্যবহার করতে পারেন শীত জুড়ে। প্রাকৃতিক ময়েসচারাইজিং উপাদান যেমন: মধু, দই, অলিভ ওয়েল, জোজোবা ওয়েল, কলা কিংবা আলমোন্ড ওয়েল ব্যবহার করুন। পছন্দ অনুযায়ী উপাদান দিয়ে মিহি করে পেস্ট তৈরি করুন। পুরো মুখ জুড়ে মাসাজ করে ১৫-৩০ মিনিট ধরে রেখে দিন।

১০. ভেজা ত্বকের পরিচর্যা করুন

গোসলের পর এবং প্রতিবার মুখ ধোয়ার পর ভেজা অবস্থায় ময়েশ্চারাইজার বা লোশন ব্যবহার করুন। এতে ত্বকের আর্দ্রতা বজায় থাকবে।

১১. ঠোঁটের পরিচর্যা

কখনোই জিব দিয়ে ঠোঁট ভেজানো উচিত নয়। কয়েক ফোঁটা অলিভ অয়েল মধুর সঙ্গে মিশিয়ে ঠোঁটে লাগালে ঠোঁট কখনোই ফেটে যাবে না।

১২. চুলের যত্ন

শীতকালে কখনোই ভেজা চুলে বাইরে বের হওয়া উচিত নয়। এতে করে চুলের আর্দ্রতা নষ্ট হয় এবং চুল ভেঙে যায়।

শীতের সময়, ফেনা-যুক্ত ক্লিনজার ব্যবহার করা যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলুন। তার পরিবর্তে স্টেরাইল অ্যালকোহলের সঙ্গে সিটাইল সমৃদ্ধ একটি ক্লিনজার ব্যবহার করুন। এগুলি ত্বক যেমন পরিষ্কার করে, তেমনি ত্বককে হাইড্রেটেডও করে। ত্বকের আর্দ্রতা বজায় রাখার পাশাপাশি ত্বকের তৈলাক্ত ভাবকে কখনও মুছে দেয় না। মৃদু, ময়েশ্চারাইজিং লেখা ক্লিনজারগুলি এই সময় ব্যবহার করুন।

সম্পর্কিত