বুধবার, ২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৫ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি
বুধবার, ২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৫ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

রৌমারীতে অপকর্ম প্রকাশ করায় সাংবাদিকের ওপর হামলা

নিজস্ব প্রতিনিধিঃকুড়িগ্রামের রৌমারীতে মাদক কারবার, সরকারি জায়গা অবৈধভাবে দখল করে আওয়ামী লীগ কার্যালয় ও অবৈধ ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলনসহ নানা অপকর্মের প্রতিবাদ করায় সাংবাদিক আনিছুর রহমানের ওপর হামলা চালানো হয়েছে। যাদুরচর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শাখাওয়াত হোসেন সবুজ, সহযোগি জাকির হোসেন ও মাদক সম্রাট খ্যাত নুরুন্নবীর বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার রাত সোয়া ৯টার দিকে উপজেলার যাদুরচর ইউনিয়নের কর্তিমারী বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় রৌমারী থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন নির্যাতনের শিকার ওই সাংবাদিক। এ নিয়ে বইছে সাংবাদিকসহ সুধিমহলে সমালোচনার ঝড়।

নির্যাতনের শিকার সাংবাদিক আনিছুর রহমান প্রেস ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ (পিআইবি) থেকে সাংবাদিকতার উপর স্নাতকোত্তর ডিপ্লোমা কোর্স সম্পন্ন করেন ও দৈনিক সংবাদের রৌমারী উপজেলা প্রতিনিধি হিসেবে দীর্ঘ দিন থেকে কাজ করে আসছেন তিনি।

নির্যাতনের শিকার সাংবাদিক আনিছুর রহমান অভিযোগ করে বলেন, গত ৯ মার্চ লোকমুখে জানতে পারেন মাদক সম্রাট নুরুন্নবীর বাড়িতে অভিযান চালায় রৌমারী থানার পুলিশের একটি দল। এ সময় ওই মাদক কারবারির তত্বাবধায়নে থাকা যাদুরচর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শাখাওয়াত হোসেন সবুজের সেচ পাম্প ঘর তল্লাশী করে মেঝের মাটি খুঁড়ে একটি পিস্তল উদ্ধার করে পুলিশ। ওই বাড়িতে অভিযানের জন্য পুলিশকে এ তথ্য দিয়েছে এমন মিথ্যা অভিযোগ তোলা হয় সাংবাদিক আনিছুর রহমানের বিরুদ্ধে। এ ছাড়া ২০২১ সালে কর্তিমারী বাজারে ‘যাদুরচর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ কার্যালয়’ লেখা দু’টি সাইনবোর্ড টানিয়ে জায়গা দখল করেন ওই আওয়ামী লীগ নেতা। ঘর নির্মাণের পর দখল করা ওই জায়গাটি ব্যক্তি মালিকানা দাবি করে ওই কার্যালয়টি ভাড়ায় দেন তিনি। মঙ্গলবার দুপুরে দখলের সময় ও বর্তমান অবস্থার দু’টি ছবি ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডিতে পোস্ট করেন ওই সাংবাদিক। এরই জের ধরে ওই রাতেই তারাবি নামাজ আদায় করে বাড়ি ফেরার পথে কর্তিমারী বাজারের আপেলের চায়ের দোকানের সামনে গেলে পথরোধ করে অতর্কিতভাবে তাঁর ওপর সন্ত্রাসী হামলা চালায় কর্তিমারী বাজার এলাকার মাদক সম্রাট নুরুন্নবী ও পৃষ্টপোষক যাদুরচর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শাখাওয়াত হোসেন সবুজ ও প্রধান সহযোগি জাকির হোসেন। একপর্যায় বেধরক মারপিটসহ শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা করা হয় ওই সাংবাদিককে। এতে আহত হয়ে মাটিতে পড়ে গেলে তাকে উদ্ধার করে রৌমারী উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ভর্তি করেন স্থানীয়রা।

সাংবাদিক আনিছুর রহমানের ছোট বোন পারভীন আক্তার বলেন, আমার ভাই ছাত্র জীবনে ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন। তিনি যাদুরচর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক তিনটি কমিটিতে প্রচার সম্পাদক, ধর্মীয় বিষয়ক সম্পাদক ও সহসভাপতির পদেও ছিলেন। অত্র এলাকার নানা অপকর্ম ফাঁস করায় আমার ভাই সাংবাদিক আনিছুর রহমানের ওপর অতর্কিত হামলা চালিয়েছে তারা। ২০১৭ সালে এই চক্রটি যোগসাজস করে একটি মিথ্যা সাজানো আইসিটি আইনের ৫৭ ধারার মামলায় ফাঁসিয়ে দেন। ওই মামলায় ৭১ দিন জেলহাজতে থাকতেও হয় তাকে। এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন তিনি।

পিআইবি জার্নালিজম এ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের (পিবজা) সভাপতি আইনজীবী ও সাংবাদিক রুহি সামশাদ আরা বলেন, সাংবাদিক আনিছুর রহমানের ওপর হামলাকারীদের অবিলম্বে আইনের আওতায় আনতে হবে। তা না হলে এলাকায় মাদকসহ অপরাধীদের দৌড়াত্ম আরও বেড়ে যাবে।

রৌমারী প্রেসক্লাবের সভাপতি সুজাউল ইসলাম সুজা বলেন, সাংবাদিক আনিছুর রহমানের ওপর যারা হামলা চালিয়েছে, তাদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

কথা হয় অভিযুক্ত যাদুরচর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শাখাওয়াত হোসেন সবুজের সঙ্গে। তিনি বলেন, সাংবাদিক আনিছুর রহমান দীর্ঘ দিন ধরে আমার সম্পর্কে যা তা প্রচার করে আসছেন। এ নিয়ে কিছু কথা কাটাকাটি হয়েছে। তার ওপর হামলা করা হয়নি।

অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করে রৌমারী থানার ওসি আব্দুল্লাহিল জামান বলেন, এ ঘটনায় তদন্ত চলছে। দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সম্পর্কিত