আজ ৩১শে আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৬ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ



রাজীবপুরে জাতীয় উৎপাদনশীলতা দিবস উপলক্ষে  আলোচনা সভা

রাজীবপুর(কুড়িগ্রাম)প্রতিনিধি:
‘অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রায় উৎপাদনশীলতা’এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে জাতীয় উৎপাদনশীলতা দিসব উদযাপন ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে।
রাজীবপুরে উপজেলা প্রশাসন ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্যোগে শনিবার(২সেপ্টেম্বর) দিবসটি উদযাপন করা হয়েছে।
জাতীয় পর্যায়ে সচেতনতা সৃষ্টির মাধ্যমে দেশের শিল্প, কৃষি ও সেবাসহ বিভিন্ন খাতে উৎপাদনশীলতা বাড়ানোই দিবসটির মূল লক্ষ্য।শিল্প মন্ত্রণালয়ের অওতাধীন ন্যাশনাল প্রোডাক্টিভিটি অর্গানাইজেশন (এনপিও) সরকারী ভাবে এই দপ্তরটি দেশের উৎপাদনশীলতা বাড়াতে কাজ করে।
রাজীবপুর উপজেলা পরিষদ  সন্মেলন কক্ষে আয়োজিত  অনুষ্ঠানে প্রাধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আকবর হোসেন হিরো উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা( ইউএনও) অমিত চক্রবর্তী, উপজেলা কৃষি অফিসার রফিকুল ইসলাম, বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শফিউর রহমান সহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা গণ।
আলোচন সভায় বক্তারা বলেন,বাংলাদেশ অপ্রতিরোধ্য গতিতে উন্নয়নের মহাসড়কে এগিয়ে যাচ্ছে। যদিও দারিদ্র্যতা আমাদের প্রধান শত্রু। দারিদ্র্য দূর করতে হলে আমাদের আত্মনির্ভরশীল হতে হবে। খাদ্য-বস্ত্রসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যসামগ্রী আমাদেরই উৎপাদন করতে হবে।
উপজেলা কৃষি অফিসার রফিকুল ইসলাম বলেন, উৎপাদনশীলতা বাড়লে শ্রমিকরা বেশি মজুরি পাবেন। মালিকরাও অধিক মুনাফা পাবেন। ভোক্তারা পাবেন সস্তায় মানসম্মত পণ্য ও সেবা। সর্বোপরি উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির ফলে সরকারের আয় বাড়বে, শিল্পায়ন ত্বরান্বিত হবে। এতে কর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে দারিদ্র্য বিমোচন সহজ হবে।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার অমিত চক্রবর্তী জানিয়েছেন,দেশে উৎপাদনশীলতা বাড়াতে সরকারের ১০ বছর মেয়াদি মহাপরিকল্পনা রয়েছে। এর আওতায় প্রতি বছর গড়ে ৫ দশমিক ৬ শতাংশ হারে উৎপাদন বাড়ানোর লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে।
অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি আকবর হোসেন হিরো  বলেন, মানুষের দৈনন্দিন জীবনযাত্রার মান উন্নয়নের সাথে  উৎপাদনশীলতা জড়িত। কৃষি, শিল্প ও সেবাসহ প্রতিটি সেক্টরে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির কোনো বিকল্প নেই। এ লক্ষ্যে সরকারের পাশাপাশি দেশের সকল সরকারী এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠান সহ জনসাধরণকেও সম্পৃক্ত হয়ে এগিয়ে আসার আহবান জানান তিনি।



Comments are closed.

      আরও নিউজ

ফেসবুক পেইজ