বুধবার, ১৯শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৫ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৩ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি
বুধবার, ১৯শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৫ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৩ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে শাটার ভেঙে দোকানে চুরি

রাবি প্রতিনিধি:রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শহীদ হবিবুর রহমান হলের সামনে সুমন স্টোর নামের এক দোকানের শাটার ভেঙে চুরির ঘটনা ঘটেছে। এসময় প্রায় নগদ অর্থসহ ৫০ হাজার টাকার মালামাল লুট হয়েছে বলে অভিযোগ ব্যবসায়ীর। রোববার (১১ ফেব্রুয়ারি) দিনগত রাতে এ ঘটনা ঘটে।

ভুক্তভোগী ব্যবসায়ী হলেন মো. বেলাল হোসেন। তিনি রাজশাহীর মেহেরচন্ডি এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টেট দপ্তর থেকে দোকান ভাড়া নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা করে আসছিলেন রুবেল। প্রতিদিনের মতো রোববার দিনগত রাতে তিনি দোকান বন্ধ করে বাসায় চলে যান। সোমবার সকালে খোঁজ পান তার দোকানে চুরি হয়েছে। দোকান গিয়ে দেখেন দোকানের শাটারের তালা ভাঙ্গা। দোকানের ক্যাশে নগদ ১২ হাজার টাকা, সিগারেটের বক্স, সাবানের বক্সসহ অন্যান্য মালামাল চুরি হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে দোকানদার বেলাল হোসেন বলেন, আমি কালকে রাত সাড়ে এগারোটায় দোকান বন্ধ করে বাসায় চলে যায়। সকালে জানতে পারি, আমার দোকানে চুরি হয়েছে। এসে দেখি আমার দোকানের সার্টার ভেঙে দোকানে চুরি করেছে। আমার নগদ ১২ হাজার টাকা এবং প্রায় ৩৫ হাজার টাকার মালামাল চুরি করে নিয়ে গেছে। এক টাকার কয়েনও রাখে নাই।

তিনি আরও বলেন, আমি গত শনিবার নতুন মাল তুলেছি দোকানে। কে বা কারা চুরি করেছে আমি কিছুই জানি না। তবে যদি কোন শিক্ষার্থী চুরি করে থাকে, সে আমার সাথে চরম অন্যায় করেছে। কারণ অনেক ছাত্রদের ফরম ফিল-আপ, ভর্তি বাবদ আমার কাছে টাকা ধার চাইলে, আমি তাদেরকে দিয়ে থাকি। অথচ আমার দোকানই চুরি হয়েছে এটা মেনে নিতে পারছি না।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. আসাবুল হক বলেন, আমি এ বিষয়টি শুনেছি। ভুক্তভোগী আমাকে ফোন দিয়েছিল। এ বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।

এদিকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন মার্কেটে একের পর এক চুরির ঘটনা ঘটছে। এ নিয়ে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন ব্যবসায়ীরা। প্রক্টর বরাবর অভিযোগ দিলেও মেলছে না প্রতিকার। সর্বশেষ গত ১ ফেব্রুয়ারি দুটি দোকানের হুক বা বালা কেটে নগদ অর্থ ও মোবাইল ফোন চুরির ঘটনা ঘটেছে।

গত ১ ফেব্রুয়ারি রাতে পরিবহণ মার্কেটের ২৪ নম্বর দোকান ‘হুমায়ুন টেলিকম’ থেকে নগদ দেড় লাখ টাকা, মোবাইল রিচার্জ কার্ড ও চারটি ফোন চুরি হয়। ঠিক এর পাশের ২৩ নম্বর দোকান ‘শাকিক কম্পিউটার-২’ থেকে নগদ ৩০ হাজার টাকা চুরি হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন পর্যাপ্ত নিরাপত্তা না দিতে পারায় এমনটি ঘটছে বলে অভিযোগ দোকানিদের।

সম্পর্কিত