মঙ্গলবার, ১৮ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১২ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি
মঙ্গলবার, ১৮ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১২ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ঘাটে রেলমন্ত্রীকে সংবর্ধনা প্রদান

মোঃ আমিরুল হক, রাজবাড়ী ঃরেলমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর প্রথমবার নিজের নির্বাচনী এলাকা রাজবাড়ী যাওয়ার প্রবেশমুখে দৌলতদিয়া ফেরিঘাটে রেলমন্ত্রী মো. জিল্লুল হাকিমকে সংবর্ধনা জানানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৮ জানুয়ারি) দুপুর সোয়া ১ টায় ফেরিতে ঢাকা থেকে রাজবাড়ীর দৌলতদিয়ার ৪ নম্বর ফেরিঘাটে এলে সেখানে তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান জেলা প্রশাসক আবু কায়সার খান, পুলিশ সুপার জি এম আবুল কালাম আজাদ ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলী।

এরপর ফেরিঘাট এলাকায় গোয়ালন্দ উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরাসহ বিভিন্ন সংগঠন রেলমন্ত্রীকে ফুল দিয়ে সংবর্ধনা জানান।

পরে নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন, রেলমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জিল্লুল হাকিম।

এসময় রেলকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের অঙ্গীকার ব্যক্ত করে রেলমন্ত্রী বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে রেলমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব দিয়েছেন। রেলকে একটি লাভজনক প্রতিষ্ঠান হিসেবে রূপান্তর করাই হবে আমার কাজ। আজকে রেল সম্প্রসারিত হচ্ছে। আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্য হলো প্রত্যেকটি জেলাতেই রেলপথ চালু করা। যে কারণে সারাদেশেই রেলের নতুন নেটওয়ার্ক চালু করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, রেলপথ চালু করলে ব্যবসা বাণিজ্যের মালপত্র আনা নেয়া এবং এক স্থান থেকে অন্য স্থানে বিভিন্ন কৃষি পণ্য পরিবহনের ক্ষেত্রে যথেষ্ট সুযোগ সুবিধা হবে। এজন্য আমাদের যেসকল রুটে ট্রেনগুলো বন্ধ হয়ে গেছে, সেই ট্রেনগুলো যাতে চালু হয় সে ব্যাপারে আমি সর্বাত্মক চেষ্টা করবো।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলী, গোয়ালন্দ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তফা মুন্সী, সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব ঘোষ, গোয়ালন্দ পৌরসভার মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম মণ্ডল, সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম সুজ্জল, দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান মণ্ডল ও উজানচর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলজার হোসেন মৃধা বক্তব্য দেন।

সম্পর্কিত