বুধবার, ২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৫ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি
বুধবার, ২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৫ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

বালিয়াডাঙ্গীতে যথাযোগ্য মর্যাদায় ঐতিহাসিক ৭ মার্চ পালিত

মোঃমনিরুজ্জামান অনিক, বালিয়াডাঙ্গী, ঠাকুরগাঁও:
যথাযোগ্য মর্যাদায় বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উদযাপিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৭ মার্চ) দিবসটি উপলক্ষে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ, বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ প্রচার, আবৃত্তি ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, ভাষণ প্রতিযোগিতার আয়োজন করে।

পরে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে ‘বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ’ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এসময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আফছানা কাওছারের সভাপতিত্বে, ঠাকুরগাঁও-২ আসনের সংসদ সদস্য মাজহারুল ইসলাম সুজন, বালিয়াডাঙ্গী থানার ওসি ফিরোজ কবির, উপজেলা ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আলেয়া পারভীন, বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোহাম্মদ আলী,সহ-সভাপতি জুলফিকার আলী, সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. আবু হাসনাত বাবু, উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি মজিবর রহমান, সাধারণ সম্পাদক আজহার আলী, স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি মোমিনুল ইসলাম ভাসানি, উপজেলা বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা, বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ, জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, শিক্ষক, সাংবাদিক ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

এসময় বক্তারা বলেন, ৭ মার্চের ভাষন ছিল পৃথিবীর অন্যতম সেরা ভাষন। এই দিনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেওয়া ভাষনের ফলে বাঙ্গালি জাতি মুক্তির দিশা পেয়েছিল। মূলত এই দিনের পর থেকেই পূর্ব বাংলায় স্বাধীনতা সংগ্রাম শুরু হয়। বাঙ্গালি জাতি মুক্তিযুদ্ধের জন্য ভেতরে ভেতরে প্রস্তুতি নিয়েছিল। বাঙ্গালি জাতির স্বাধীনতার জন্য এই ভাষনটি সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ ছিল। যার ফলে জাতিসংঘ এই ভাষনটিকে ঐতিহাসিক ভাষন হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

সম্পর্কিত