আজ ৩১শে আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৬ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ



পরীমনির জন্য লন্ডন থেকে ব্যারিস্টার পাঠাতে চান গাফফার চৌধুরী

মাদক মামলায় গ্রেফতারের পর রিমান্ড শেষে বর্তমানে কারাগারে রয়েছেন চিত্রনায়িকা পরীমনি। এদিকে এ নায়িকার জন্য ন্যায়বিচার চেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে একটি আবেদন জানান প্রখ্যাত লেখক, সাংবাদিক ও কলামিস্ট আব্দুল গাফফার চৌধুরী। আবেদনে তিনি লিখেছিলেন, বাংলাদেশে শেখ হাসিনার শাসনামলেই নারীদের ক্ষমতায়ন শুরু হয়েছে। সেজন্যই তার কাছে আমার সবিনয় আবেদন, পরীমনির ব্যাপারে তিনি হস্তক্ষেপ করুন। তাকে বিচার থেকে রক্ষা করতে বলি না। তাকে হায়েনার গোষ্ঠীর হাত থেকে বাঁচানোর জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি। পরীমনির সঙ্গে যে আচরণ করা হচ্ছে, তা যে দেশের আর একজন নাগরিকের ওপর করা হবে না, তার নিশ্চয়তা কী? আমি দেশের সচেতন বুদ্ধিজীবী শ্রেণির কাছে আবেদন করি, তারা পরীমনির ওপর এই হেনস্তার তীব্র প্রতিবাদ করুন। দয়া করে চুপ করে থাকবেন না। পরীমনির ওপর অত্যাচারের প্রতিবাদ করুন। মিডিয়ার কাছে অনুরোধ, তারা যেন অত্যাচারিতের পক্ষে দাঁড়ায়। অত্যাচারী গোষ্ঠীর পক্ষে না যায়।

গ্রেফতারের পর থেকেই পরীমনির মামলার গতি-প্রকৃতির নজর রাখছেন প্রবীণ এই সাংবাদিক ও লেখক। পরীমনির মামলায় আইনি সহায়তার জন্য ব্যারিস্টারদের সঙ্গেও কথা বলেছেন তিনি। এরইমধ্যে তিনজন ব্যারিস্টার অপারগতা প্রকাশ করেছেন। ক’দিন আগে একজন রাজি হয়েছেন। শেষ পর্যন্ত যদি একজনও রাজি না হন, তাহলে লন্ডন থেকে ব্যারিস্টার পাঠানো হবে। গণমাধ্যমকে নিজেই এ তথ্য জানিয়েছেন মহান একুশের গানের রচয়িতা আব্দুল গাফফার চৌধুরী। লন্ডনের আইপি টিভি দর্পন-কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা জানিয়েছেন তিনি।

গাফফার চৌধুরী বলেন, পরীমনির সঙ্গে তার পরিচয় নেই। সরাসরি দেখেননি। ছবিতে দেখেছেন শুধু। কিন্তু হঠাৎ একদিন অনলাইনে দেখলাম চিৎকার করছে আমাকে বাঁচাও বাঁচাও বলে। তার বিরুদ্ধে সন্ত্রাসের কোনো অভিযোগ নেই। মাদকাসক্তের অভিযোগ আছে। কিন্তু তাকে গ্রেপ্তারের জন্য যেভাবে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা ছাড়া র‍্যাব আসে তা ছিল রীতিমতো ভীতিকর। কোন আদেশে আসলো? তা জানার চেষ্টা করলাম। অনুসন্ধান করতে গিয়ে দেখি, সে আক্রোশের শিকার। একজন নায়িকার বাড়িতে মদ পাওয়া যাবে না, এটাই বা কি করে আশা করি! তার বাসায় এলএসডি পাওয়া গেছে। আমার ধারণা, এটা সাজানো হয়েছে। যাইহোক, তার পক্ষে কিছু লোক দাঁড়িয়েছে। আমিও দাঁড়িয়েছি। প্রধানমন্ত্রীর কাছে চিঠি লিখেছি। খবরের কাগজে লিখেছি। ১৭ জন বিশিষ্ট নাগরিক বিবৃতি দিয়েছেন। কোনো সাড়া মেলেনি।

গাফফার চৌধুরীর বলেন, আমার কথা হচ্ছে পরীমনি দোষী হলে নিয়মমাফিক তার বিচার হবে। আমি বিচারের বিরুদ্ধে নই। কিন্তু তাকে ধরার সাথে সাথে বলা হচ্ছে, রাতের রানী। এভাবে চরিত্রহনন সম্পূর্ণ বেআইনি। অন্য কোনো দেশে হলে সংশ্লিষ্ট বাহিনীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হতো। প্রবীণ এই সাংবাদিক সাক্ষাৎকারের এক পর্যায়ে বলেন, পরীমনি মেয়েটি অসম্ভব সুন্দরী। গরিবের ঘর থেকে এসেছে। এটাও একটা অপরাধ। বলা হচ্ছে, সুনির্দিষ্ট অভিযোগ রয়েছে। আজও জানা গেল না সুনির্দিষ্ট অভিযোগটা কি? মদের বার নেই গুলশান,বনানীতে এমন বাড়ি কি আছে?



Comments are closed.

      আরও নিউজ

ফেসবুক পেইজ