বুধবার, ২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৫ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি
বুধবার, ২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৫ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

নববিবাহিত দুবাই প্রবাসীর মরদেহ উদ্ধার

বিশ্বনাথ সরকার(স্টাফ রিপোর্টার):-কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে মাসুদ পারভেজ (৩৪) নামের এক দুবাই প্রবাসী নববিবাহিত যুবকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

আজ সোমবার ৪ মার্চ ২০২৪ ইং তারিখ সকালে ফুলবাড়ীর কাশিপুর ইউনিয়নের আজোয়াটারী ধর্মপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। সকালে মায়ের শাড়ী গলায় পেঁচিয়ে নিজ বাড়ির উঠানের আমগাছে ফাঁসিতে ঝুলানো অবস্থায় ফুলবাড়ী থানা পুলিশ তার মরদেহ উদ্ধার করেছে। ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) প্রাণকৃষ্ণ দেবনাথ
বিষয়টি নিশ্চিত করেন।
নিহত মাসুদ পারভেজ ওই এলাকার  সাবেক ইউপি সদস্য মৃত আবু বক্করের ছেলে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তার মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যায়নি।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,  সোমবার সকালে প্রতিবেশী এবং বাড়ির কাজের লোকজন এসে নিহত মাসুদকে ডাকাডাকি করলে সাড়া না পেয়ে তার বাড়ীর বেড়ার ফাঁক দিয়ে উঠানের আমগাছে তার ঝুলন্ত মরদেহ দেখতে পান। পরবর্তীতে খবর পেয়ে তার মা, স্ত্রী ও শ্বশুর বাড়ির আত্নীয়-স্বজন চলে আসতে শুরু করে। এদিকে স্থানীয় লোকজন থানায় খবর দিলে সকাল ১১ টার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে প্রবাসী যুবকের মরদেহ উদ্ধার করে।

নববধূ তন্নী বেগম (২৮) স্বামীর ঝুলন্ত মরদেহ দেখে বার বার কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। কান্নাজড়িত কন্ঠে নববধূ তন্নী বেগম বলেন, কোন ক্রমেই আমার স্বামী আত্মহত্যা করেনি। এখনো আমার হাতে মেহেদীর রং জল জল করছে। আমাকে ছেড়ে আমার স্বামী আত্মহত্যা করতে পারে না। এটা আমি মেনে নিতে পারছি না।এভাবে বলতে বলতে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন তন্নী বেগম এবং বারবার মূর্ছা যান।
এ বিষয়ে কাশিপুর ইউপি চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান মানিক সহ স্থানীয়রা জানান, প্রবাসী মাসুদ বিয়ে করার জন্য বাড়িতে আসেন ২৭ দিন আগে এবং আজ থেকে ৯ দিন  আগে কুড়িগ্রাম সদরের খলিলগঞ্জ এলাকায় বিয়ে করেন। তার বাড়িতে গেলো কয়েকদিন ধরে বিয়ের আমেজ চলছিল। গতকাল রোববার তার মা মনোয়ারা বেগম হঠাৎ অসুস্থ বোধ করলে মাসুদ চিকিৎসার জন্য তার মাকে কুড়িগ্রামে নিয়ে যান। নববিবাহিতা স্ত্রীও তাদের সঙ্গে কুড়িগ্রাম বাপের বাড়ি যান। ডাক্তার দেখানোর পর মাকে ছোট বোনের বাড়িতে এবং স্ত্রীকে শ্বশুর বাড়িতে রেখে রাতেই বাড়ি ফেরেন মাসুদ পারভেজ এবং তিনি একাই বাড়িতে ছিলেন।

ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) প্রাণকৃষ্ণ দেবনাথ জানান, মরদেহ উদ্ধার করে সুরতহালের কাজ চলছে। ঘটনাস্থলে পুলিশের একটি দল মৃত্যু্র কারণ জানার চেষ্টা করছে। সুরতহালের রিপোর্ট আসলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে। তারপর পরবর্তীতে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সম্পর্কিত