নভেম্বর ৩০, ২০২২ ১০:৫৬ বিকাল



গাইবান্ধায় পিয়াজ বর্তমানে সোনার হরিণ

রিপন মিয়া,গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ

বর্তমানে সোনার হরিন হয়ে গেছে পিয়াজ। গত সপ্তাহের প্রথম দিকে গাইবান্ধা জেলার বিভিন্ন এলাকায় ৮০ হতে ১০০ টাকা প্রতি কেজি দরে বিক্রির খবর মিললেও সপ্তাহের শেষ ২ দিনে যা গিয়ে ঠেকেছে ২০০ হতে ২৪০ টাকা। বর্তমানে এমনেই অবস্থা যে, বর্তমান বানিজ্যমন্ত্রী সহ এই বিভাগের দেখ ভালের কর্মকর্তারা মনেহয় নিজেরাই নিয়ন্ত্রন হারিয়ে ফেলেছেন। আর এই কারনে পিয়াজ বর্তমানে সোনার হরিন হয়ে গেছে। গৃহিণী গন ও পিয়াজ ছাড়া রান্না করা যায় কি না এই বিষয়ে শিখতে রান্না বাদ দিয়ে নেটে খুজছে উপায়।

গাইবান্ধা জেলার সব চাইতে বড় পাইকারি বাজার পুরাতন বাজারে গিয়ে বিভিন্ন দোকানে খোজ নিয়ে দেখা যায় প্রতি পাল্লা (মানে ৫ কেজি ) পিয়াজ বিক্রি করছেন ৯শত হতে ১হাজার টাকা দরে। আর খুচরা বিক্রেতা সেই পিয়াজ বিক্রি করছে প্রতি কেজি ২শত হতে ২৪০ টাকা দরে। খুচরা বিক্রেতাদের হিসাবে প্রতি পাল্লা পিয়াজের দাম পড়ছে ১২ শত হতে ১৪শত টাকা। তবে বাজারে আমাদের দেশি পাতা পিয়াজ বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৯০ হতে ১শত টাকা দরে। দামে কম থাকলেও চাহিদার তুলনায় বাজারে আমদানি কম থাকায় বাধ্য হয়ে কিনতে হচ্ছে শুকনা পিয়াজ।

বাজারে আশা একজন ক্রেতা বলেন, সরকার ঢাক ঢোল পিটিয়ে বিমানে করে বিদেশ থেকে পিয়াজ আমদানী করলেও বাজারে তার কোন প্রভাব প্রতি লক্ষিত হচ্ছে না। এমনেই অবস্থা যে, আর কিছু দিন এই ভাবে চললে মানুষ পিয়াজের অভাবে তরকারী রান্না বন্ধ করে দিবে। তিনি আরো বলেন পিয়াজের বাজারের বর্তমান অবস্থা নিয়ন্ত্রনে সরকারের বানিজ্যমন্ণ্রী ও সংশ্লিষ্ট বিভাগ সম্পূর্ন রুপে ব্যার্থ।



Comments are closed.

      আরও নিউজ