বুধবার, ২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৫ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি
বুধবার, ২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৫ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

গণতান্ত্রিক গোলাম◾খান জাহান

গণতান্ত্রিক দেশে গোলাম

আমরা

আজ কি গণতন্ত্র আছে?

-জি আছে।

তবে আমরা গোলাম কেনো?

-কিভাবে গোলাম আপনি?

কিভাবে মানে

আজ সরকারি চাকরিজীবি

সকল পদের কর্মচারী

নিজেকে ভাবে অফিসার ।

– তাই নাকি?

জি।

ইউনিয়ন ভুমি অফিসের তহসিলদার অপেক্ষায় আছে কখন মক্কেল আসবে খারিজের প্রস্তাব নিতে।

প্রস্তাব নিতেই দিতে হবে

এক হাজার।

সেটা নাকি তাদেরপাওনা।

এটাই নাকি তারা নেয়।

-তাই না কি ?

জি।শেষ হয়নি

অফিসের পিয়ন বসে আছে

কখন নোটিশ জারী করতে যাব তার নাকি পাওনা একশো থেকে দুইশ।

-কি বলেন?

শেষ হয়নি।

সার্ভেয়ার বসে আছে

সরেজমিন তদন্তের নামে

তদন্ত না করে নিয়ে নিবেন তিনশত।

-যদি না দেই?

তবে চাইবে পূর্ব মালিকের খাজনা পরিশোধ।

-তারপর তারপর

এখন শুনানির দিন খারিজ আমি কিভাবে পাড় করব?

-কেনো? নিজে পাড় করবেন।

জি না।

নিজে পাড় করলে সারাদিন অফিসারের অপেক্ষায় থাকতে হবে।

আর যদি আপনি প্যাকেজ প্রোগ্রাম এর মাধ্যমে পাড় করেন দিতে হবে দুই হাজার।

-বলেন কি?

জি।

গণতান্ত্রিক গোলাম আমরা।

তারপর ডি সি আর এর টাকা জমা দাও এক হাজার একশত পঞ্চাশ ।

ইহা সরকারি কোষাগারে জমা হলো।

বাকি গুলো নয়।

-বুঝলাম ঘুষ বাবদ তিন হাজার চারশত।

শেষ হলো বুঝি?

না মশাই।

তারপর হোল্ডিং খুলতে আবার ইউনিয়ন ভুমি অফিসে নিবেন একশত।

তারপর খাজনার অনুমোদন দিতে, তহসিলদার নিবেন দুইশত।

-শেষ হলো বুঝি?

জি। তবে শেষ হইয়াও হইলো না।

খাজনার টাকার অংক যদি হয় দশ হাজার

তহসিলদার পাচ হাজার বকশিস নিয়ে

খাজনা দেখাবে এক হাজার।

 

সরকারি কোষাগারে জমা

হইল না নয় হাজার।

আমার ঠিকই চলে গেলো খাজনা বাবদ ছয় হাজার।

গণতান্ত্রিক দেশে গোলাম আমরা।

-আসলে তাই।

আমরা গণতান্ত্রিক গোলাম।

সম্পর্কিত