মঙ্গলবার, ১৬ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১লা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১০ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি
মঙ্গলবার, ১৬ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১লা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১০ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

কুড়িগ্রামে সেবাইতদের দক্ষতা বৃদ্ধিকরণ প্রকল্পের আওতায় ৯ দিন ব্যাপী প্রশিক্ষণের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে পুলিশ সুপার

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

আজ ২২ জুন ২০২৪, শনিবার কুড়িগ্রাম হিন্দুধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্ট, ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের আয়োজনে “ধর্মীয় ও আর্থ-সামাজিক প্রেক্ষাপটে পুরোহিত ও সেবাইতদের দক্ষতা বৃদ্ধিকরণ প্রকল্প” (২য় পর্যায়) -এর আওতায় কুড়িগ্রাম জেলায় সম্মানিত সবাইতদের ৯ দিন ব্যাপী “সামাজিক মূল্যবোধ, কৃষি ও বনায়ন, গৃহপালিত গবাদী পশু পালন” বিষয়ক প্রশিক্ষণের শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুড়িগ্রাম জেলার পুলিশ সুপার আল আসাদ মোঃ মাহফুজুল ইসলাম।কুড়িগ্রামে সেবাইতদের দক্ষতা বৃদ্ধিকরণ প্রকল্পের আওতায় ৯ দিন ব্যাপী প্রশিক্ষণের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে পুলিশ সুপার

হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের সম্মানিত ট্রাস্টি বীর মুক্তিযোদ্ধা উদয় শংকর চক্রবর্ত্তী এর সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন, কুড়িগ্রামের পৌর মেয়র মোঃ কাজিউল ইসলাম, কুড়িগ্রাম পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি রবি বোস, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি এস এম ছানালাল বকসী, সাধারণ সম্পাদক  অলক সরকার, পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক  দুলাল চন্দ্র রায়, দক্ষিণ মিস্ত্রি পাড়া পূজা মন্ডপের সভাপতি শ্যামল ভৌমিক।

অনুষ্ঠানে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির সুনিপুণ ও সুদৃঢ় বন্ধনে কুড়িগ্রাম পৌরসভাধীন দক্ষিণ পাড়া সার্বজনীন কালী মন্দিরে বিভিন্ন থানার সেবাইতদের সাথে বাল্যবিবাহ, ইভটিজিং, মাদক, সন্ত্রাসবাদ, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি সহ সমসাময়িক নানাবিধ আইনশৃঙ্খলা বিষয়ে আলোচনা করেন কুড়িগ্রাম জেলার পুলিশ সুপার জনাব আল আসাদ মোঃ মাহফুজুল ইসলাম।

পুলিশ সুপার তার বক্তব্যে বলেন কুড়িগ্রাম জেলা পুলিশ মাদক, ইভটিজিং আইন শৃঙ্খলা পরিপন্থী কাজের সাথে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে সার্বক্ষণিক অভিযান অব্যাহত রেখেছে। এ সময় তিনি ইভটিজিং ও মাদক নির্মূলে হিন্দু ধর্মালম্বী পুরোহিত ও সেবাইত দের সহযোগিতা কামনা করেন।

একই সাথে কুড়িগ্রামে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় সকলে মিলে সম্মিলিত ভাবে প্রগাঢ়বন্ধনে দৃঢ়ভাবে কাজ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। পুলিশ সুপার দ্ব্যর্থহীন ভাবে অভয় দিয়ে বলেন, কুড়িগ্রামে যদি কেউ ধর্মীয় বন্ধনে আঘাত করে বা আঘাতের অপচেষ্টা করে, তার বিরুদ্ধে আইনের কঠোর প্রয়োগ, যে কোন মূল্যে নিশ্চিত করা হবে

সম্পর্কিত