বুধবার, ২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৫ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি
বুধবার, ২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৫ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

কুড়িগ্রামে বিদেশি কোন রাষ্ট্রপ্রধানের প্রথম সফর ,সন্তুষ্ট ভুটানের রাজা

নিজস্ব প্রতিবেদক:উত্তরাঞ্চলের জেলা কুড়িগ্রামে ‘ভুটান বিশেষায়িত অর্থনৈতিক অঞ্চল’ পরিদর্শনে আসেন ভুটানের রাজা জিগমে খেসার নামগিয়েল ওয়াংচুক। এটি ছিলো বিদেশি কোন রাষ্ট্রপ্রধানের প্রথম কুড়িগ্রাম সফর।

বৃহস্পতিবার (২৮ মার্চ) দুপুর ১টা ২০ মিনিট থেকে ১টা ৩৫ মিনিট পর্যন্ত কুড়িগ্রাম ধরলা সেতুর পূর্ব পাশে ভোগডাঙ্গা ইউনিয়নের মাধবরাম এলাকায় বৃহস্পতিবার দুপুরে ১৪ সদস্যের সফরসঙ্গী নিয়ে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের জন্য নির্ধারিত স্থান পরিদর্শন করেন তিনি।

এ সময় রাস্তার দুপাশে শত শত মানুষ রাজাকে একনজর দেখার জন্য ভিড় করেন জানিয়ে তিনি বলেন, “রাজা কঠোর নিরাপত্তা বলয়ের মধ্যে ছিলেন। তবে তিনি গাড়িতে বসেই হাত নেড়ে উষ্ণ শুভেচ্ছার জবাব দেন। এতেই খুশি সাধারণ মানুষ। তারা স্বপ্ন দেখছেন, অর্থনৈতিক অঞ্চল বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে এ জনপদের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন হবে।”

কুড়িগ্রামে বিদেশি কোন রাষ্ট্রপ্রধানের প্রথম সফর ,সন্তুষ্ট ভুটানের রাজা

ভুটানের রাজা অর্থনৈতিক অঞ্চলের পরিদর্শন শেষে স্থান ত্যাগের পর সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা) নির্বাহী চেয়ারম্যান শেখ ইউসুফ হারুন বলেন “ভুটানের রাজা কুড়িগ্রামের অর্থনৈতিক অঞ্চল দেখে খুশি হয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন, যত দ্রুত সম্ভব এ বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে ভুটানের বিনিয়োগ শুরু হবে।“

ভুটানের রাজার বরাত দিয়ে ইউসুফ হারুন আরও বলেন, রাজা বলেছেন, স্থানীয় লোকজনের চাহিদা এবং বিনিয়োগকারীদের চাহিদার সমম্বয়ে এখানে কলকারখানা গড়ে উঠবে। বিশেষ করে কৃষিভিত্তিক এবং উৎপাদনশীলতাকে প্রাধান্য দেয়া হবে।

রাজার কুড়িগ্রাম সফরে তাঁর সাথে ছিলেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা) নির্বাহী চেয়ারম্যান শেখ ইউসুফ হারুন, কুড়িগ্রাম ২ আসনের সংসদ সদস্য ডা. হামিদুল হক খন্দকার, কুড়িগ্রাম পৌরসভার মেয়র কাজিউল ইসলাম, পুলিশ সুপার, জেলা প্রশাসক সহ অন্যান্য রাজনৈতিক নেতা ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা।

ভুটানের রাজা কুড়িগ্রামের অর্থনৈতিক অঞ্চল পরিদর্শন শেষে ভুরুঙ্গামারী উপজেলার সোনাহাট স্থলবন্দর দিয়ে ভারতের ভারতের আসাম রাজ্যের গোলকগঞ্জে প্রবেশ করেন বিকেল ৩টার দিকে। সেখানে তাঁকে বিদায় জানান বাংলাদেশের নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। এর মধ্য দিয়ে ভুটানের রাজার বাংলাদেশে চার দিনের রাষ্ট্রীয় সফর শেষ হলো।

উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৫ সালে কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজ মাঠে এক জনসভায় কুড়িগ্রামে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে জেলা শহরের পূর্ব প্রান্তে ধরলা ব্রিজের পূর্বে কুড়িগ্রাম-ভূরুঙ্গামারী সড়কের পূর্ব পাশে অর্থনৈতিক অঞ্চলের জন্য জায়গা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এরপর ২০২৩ সালের মে মাসে লন্ডনে ভুটানের রাজা ও রানির সঙ্গে এক দ্বিপক্ষীয় সভায় কুড়িগ্রামে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার প্রস্তাব দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেই আহ্বানে সাড়া দিয়ে ভুটান সরকার এগিয়ে আসে। এর প্রেক্ষিতে কুড়িগ্রামে একটি বিশেষায়িত অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার জন্য ভুটানকে ১৯০ একর জমি দিচ্ছে বাংলাদেশ সরকার। ভুটানের রাজার চলমান বাংলাদেশ সফরে কুড়িগ্রামে ভুটানের জন্য বিশেষায়িত অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা বিষয়ে একটি চুক্তিও সাক্ষরিত হয়েছে বাংলাদেশ সরকারের সাথে।

সম্পর্কিত