রবিবার, ১৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১১ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি
রবিবার, ১৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১১ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

কুড়িগ্রামে জোর পূর্বক কবরস্থান নির্মাণকে কেন্দ্র করে বিধবাকে বেধরক মারপিট ও ঘর বাড়ি ভাংচুরের অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃকুড়িগ্রাম উলিপুরে দীর্ঘদিন ধরে মৃত চাচার সম্পত্তি হাতিয়ে নেয়ার দুর্বিসন্ধি গড়ে আসছে ভাতিজারা।সকল পরিকল্পনা ব্যর্থহয়ে অবশেষে চাচার জমিতে কবরস্থান তৈরির নামে ১০০ দিনের কর্মসূচির শ্রমিকদের কাজে লাগিয়ে গন্ডগোলের সৃষ্টি, ঘরদুয়ার ভাংচুর এবং অমানবিক নির্যাতন করে আহত করেছে বিধবা নারী সহ এতিম সন্তানকে,দশ্যূদের ভয়ে মুখ খুলতে এবং প্রতিবাদ করতে সাহস পাচ্ছে না এলাকার নিরীহ এবং সাধারণ জনগণ, ঘটনার বিবরণে প্রকাশ। কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর উপজেলার দূর্গাপুর ইউনিয়নের যমুনাঝাকুয়াপাড়া এলাকায় মরহুম আঃ মজিদ, মরহুম আঃ রহিম দুইভাই,ছোট ভাই আঃ রহিম আগে মারাগেলে তার নাবালক সন্তানদের নিয়ে স্বামীর ভিটা আকরে ধরে বসবাস করে আসছেন নির্যাতিতা অসহায় বিধবা ভুক্তভোগী হোসনেআরা পারভীন (মেরি) স্বামী মারা যাওয়ার পর থেকে মরহুম আঃ মজিদের বড় ছেলে সামসুল হক,সাহালোম, এমদাদুল হক ও ফুফাতো ভাই সাজুসহ দুঃকৃতিকারী মহলটি মৃত আঃ রহিমের সমস্ত সম্পত্তি বেদখল করার জন্য বিভিন্ন ধরনের সরযন্ত্র ও পরিকল্পনা করে আসছিল, দীর্ঘদিন ধরে তারা অসহায় নির্যাতিত পরিবারটির উপর বিভিন্ন ধরনের নির্যাতন ও প্রভাব খাটিয়ে আসছিল।ঘটনার দিন গত ১৫ এপ্রিল সকাল ৯টার দিকে পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী বসতবাড়ির পাশেই দুই শরিকের একটি জমিতে কবর স্থান নির্মাণ এর নাম করে ১০০ দিনের কর্মসূচির শ্রমিকদের কাজে লাগিয়ে দেয়, এতে ভুক্তভোগী বিধবা মহিলা ও দুঃকৃতিকারীদলের সর্দার সামসুল হকের ছোট ভাই সিরাজুল ইসলাম বাধা ও আপত্তি প্রদান করিলে

তাদের উপর লাঠি সোটা দেশীয় ধারালো অস্ত্রসহ শামসুল হক, এমদাদুল হক, শাহ আলম ,শামসুল হকের ছেলে লাদেন সহ ১০-১৫ জনের একটি সঙ্ঘবদ্ধ দল তাড়া করিয়ে বাড়ির ভিতর ঢুকায়ে এবং প্রাণভয়ে ঘরের দরজা জানালা বন্ধ করে দিলে প্রথমে সেগুলো ভাঙচুর করে তাদের উপর আক্রমণ চালায় এবং তাদেরকে মারাত্মকভাবে জখম করে । এতে ভুক্তভোগীর আহত হয়ে পড়ে। আহত ব্যক্তিদের অটো রিক্সাযোগে স্থানীয় ব্যক্তিরা উলিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য পাঠানোর চেষ্টা করলে প্রভাবশালীরা আহতদেরকে হাসপাতালে না নেওয়ার জন্য অটোরিকশাচালক কে হুমকি প্রদান করে। পরবর্তীতে ৯৯৯ এ কল করে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন এসে তাদেরকে উদ্ধার করে আহতদের হাসপাতালে নেওয়ার ব্যবস্থা করে। পরবর্তীতে ১৮ই এপ্রিল ভুক্তভোগী বিধবা মহিলা বাদী হয়ে উলিপুর থানায় একটি এজাহার দায়ের করেন। যার নং ২৮/১১৩ ,ধারাসমূহ-১৪৩, ৪৪৭,৩২৩,৩২৫,৩২৬,৩০৭,৩৮০,৩৫৪,৪২৭,৫০৬,১১৪,৩৪ পেনাল কোর্ট।উল্লেখ্য তাদের উপর এই বর্বরোচিত ও নৃশংস হামলার ভিডিও ফেসবুক সহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয় ।একটি সূত্র মতে, শামসুল হকের স্ত্রী লুৎফা বেগমের ক্লাস ফ্রেন্ড বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান- সাইফুল ইসলাম এর প্রভাব খাটিয়ে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ধরনের হয়রানির করে আসছে বলে জানা গেছে ।
সর্বশেষ গত ২২ এপ্রিল রাত ০০:১০ মিনিটে কোন এক অদৃশ্য ক্ষমতার প্রভাবে শামসুল হকের মা মোছাঃ সাজিরণ বেগমকে বাদী করে উলিপুর থানায় একটি মামলা রেকর্ড করান, যার নং ৩৬/১২১।সরে জমিনে দেখা গেছে, ভুক্তভোগী বিধবা মহিলার বাড়িঘর দুয়ার ভাঙচুর অবস্থায় পড়ে রয়েছে এবং তারা প্রাণভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। ভুক্তভোগী মহিলা জানান – আমার সন্তানরা বাহিরে থাকেন , আমি একজন বিধবা মহিলা। আমার সংসার দেখভাল করার জন্য আমি আমার ভাসুরের একটি ছেলের সহায়তা নিয়ে থাকি। এখন তারা আমাকে ভিটা ছাড়া করে আমার স্বামীর সম্পত্তি সমূহ জবরদখল করার জন্য বিভিন্ন ধরনের অত্যাচার, নিপীড়ন এবং মিথ্যা মামলা দিয়ে আমাদেরকে ঘরছাড়া করেছে ।আমি প্রশাসনের সর্বোচ্চ মহলের নিকট আকুল আবেদন জানাচ্ছি- আমার নিরাপত্তার জন্য এবং আমার পরিবারের নিরাপত্তার জন্য তারা যেন সুদৃষ্টি দেন। উলিপুর থানা অফিসার ইনচার্জ(OC)গোলাম মর্তুজার সাথে মুটোফোনে যোগাযোগ হলে তিনি উত্তরবঙ্গের সংবাদকে জানান, এ বিষয়ে মামলা হয়েছে এবং একজন আসামিকেও গ্রেফতার করা হয়েছে ,প্রতিপক্ষরাও মামলা করেছে সেটিও তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সম্পর্কিত