বুধবার, ২৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২১শে জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি
বুধবার, ২৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২১শে জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

“অবৈধ সরকারের ক্ষমতায় টিকে থাকার কোন অধিকার নেই”— খুলনায় ইসলামী আন্দোলন নেতৃবৃন্দ

শেখ নাসির উদ্দিন, খুলনা প্রতিনিধি: “বিদ্যমান রাজনৈতিক সংকট উত্তরনে সংসদ ভেঙ্গে দিয়ে জাতীয় সরকারের অধীনে একটি সুষ্ঠ—নিরপেক্ষ জাতীয় নির্বাচন, সংখ্যানুপাতিক নির্বাচন (পিআর) পদ্ধতির প্রবর্তন, ব্যর্থ নির্বাচন কমিশন বাতিলের দাবিতে”— আজ শুক্রবার (২৭ অক্টোবর) বিকাল ৩ টায় ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর সারাদেশব্যাপী কেন্দ্রিয় কর্মসূচির অংশ হিসাবে খুলনা মহানগর ও জেলা শাখার উদ্যোগে খুলনার নিউমার্কেট বায়তুন নূর চত্ত্বরে সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

বিক্ষোভ মিছিল পূর্বক সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন— দেশ আজ চরম সংকট মুহুর্তের মধ্য দিয়ে অতিবাহিত হচ্ছে। এই আওয়ামী অবৈধ সরকার ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য দেশকে এক সংঘাতময় পরিস্থিতির দিকে ঠেকে দিচ্ছে। তারা খুন গুম পেশী শক্তি ব্যবহার করে ক্ষমতায় টিকে থাকতে চায়। এদেশের সাধারন জনতা আজ তাদের মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত, চারিদিকে চলছে হাহাকার। দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রনহীন প্রতিটা পন্যের মূল্য আকাশছোয়া, শ্রমজীবি মানুষের ঘরে খাবারের অভাব। আর অপর দিকে সরকারের মন্ত্রীবর্গ—নেতাদের অবৈধ সম্পদ বেড়েই চলেছে। আজ মানুষ খাদ্য, বস্ত্র, চিকিৎসা সহ সকল মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত। এদেশের মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য প্রয়োজন আরও একটি সংগ্রাম, প্রয়োজন একটি চুড়ান্ত বিপ্লবের। যেই বিপ্লবের মাধ্যমে এদেশের প্রতিটা নাগরিক ফিরে পাবে তাদের ন্যায্য অধিকার। দেশের জনগনের অধিকার আদায়ের লক্ষে পীর সাহেব চরমোনাই এর ডাকে এদেশের মানুষকে সাথে নিয়ে এই স্বৈরাচার সরকারের পতনের জন্য আমরা সর্বদা প্রস্তুত থাকবো ইনশাআল্লাহ।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ খুলনা জেলা সভাপতি অধ্যাপক মাওলানা আব্দুল্লাহ ইমরান এর সভাপতিত্বে ও মহানগর সেক্রেটারী মুফতি ইমরান হুসাইন এর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত বিক্ষোভপূর্ব সমাবেশে বক্তারা বলেন— “দেশকে এই আওয়ামী অবৈধ সরকারের হাত থেকে দখলমুক্ত করার জন্য সর্বোচ্চ ত্যাগ করার জন্য পীর সাহেব চরমোনাই এর লক্ষ লক্ষ কমীর্ বাহীনি প্রস্তুত। পীর সাহেব চরমোনাই যখন রাজপথে চুড়ান্ত বিপ্লবের ডাক দিবে সবাই সেই বিপ্লবে ঝাপিয়ে পড়বে। নেতা কমীর্রা, সরকারকে পদত্যাগ করে সংসদ ভেঙ্গে দিয়ে জাতীয় সরকারের অধীনে একটি সুষ্ঠ—নিরপেক্ষ জাতীয় নির্বাচন এর পরিবেশ সৃষ্টি করার জোর দাবী জানান”

সভাপতির বক্তব্যে জেলা সভাপতি অধ্যাপক আব্দুল্লাহ ইমরান বলেন,
“বিদ্যমান রাজনৈতিক সংকট উত্তরনে সংসদ ভেঙ্গে দিয়ে জাতীয় সরকারের অধীনে একটি সুষ্ঠ—নিরপেক্ষ জাতীয় নির্বাচন, সংখ্যানুপাতিক নির্বাচন (পিআর) পদ্ধতির প্রবর্তন, ব্যর্থ নির্বাচন কমিশন বাতিলের দাবিতে” আগামী ০৩ নভেম্বর ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর আমীর পীর সাহেব চরমোনাই’র আহবানে সারা দিয়ে এদেশের জনতা রাজধানী ঢাকা কে জনসমুদ্রে পরিনত করবে ইনশাআল্লাহ। তিনি, সবাইকে ০৩ নভেম্বরে ঢাকা’র জাতীয় মহাসমাবেশ বাস্তবায়নের জন্য নিরলশ পরিশ্রম করার আহ্বান জানান।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন দলের নগর সহ-সভাপতি মুফতি আমানুল্লাহ, শেখ মোঃ নাসির উদ্দিন, আলহাজ্ব আবু তাহের, মুফতী মাহবুবুর রহমান, নগর নেতা শেখ হাসান ওবায়দুল করিম, জেলা সেক্রেটারী হাফেজ আসাদুল্লাহ আল গালিব, মাওলানা শায়খুল ইসলাম বিন হাসান, মাওলানা মুজিবুর রহমান, মোঃ জামিল হোসেন, মোঃ আবু গালিব, আলহাজ্ব জাহিদুল ইসলাম, মাওলানা দ্বীন ইসলাম, মুফতী আব্দুল জব্বার আযমী, মাওলানা সাইফুল ইসলাম, আলহাজ্ব আব্দুস সাত্তার, আব্দুল্লাহ আল নোমান, মুফতী আশরাফুল ইসলাম, মোঃ হুমায়ুন কবির, আলহাজ্ব আবুল কাশেম, এ্যাডঃ কামাল হোসেন, মুফতী ইলিয়াস মাঞ্জুরী, মাওঃ আসাদুল্লাহ হামিদি, মাওঃ আব্দুল্লাহ আল মামুন, মোঃ রেজাউল করীম, মাওলানা মাহবুবুল আলম, বীরমুক্তিযোদ্ধা জিএম কিবরিয়া, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান শেখ রওশান আলী, আলহাজ্ব সরোয়ার বন্ধ, হাফেজ আব্দুল লতিফ, মাওলানা নাছিম উদ্দিন শেখ, মোল্লা রবিউল ইসলাম, এস.এম শাহিন হোসেন, এইচ এম আরিফুল ইসলাম, গাজী ফেরদাউস সুমন, মুফতী মইনুল ইসলাম, মাষ্টার মঈনুদ্দিন ভুইঁয়া, মাওলানা হাফিজুর রহমান, ইসমাঈল হোসেন, মাওলানা হারুনুর রশিদ, শিক্ষকনেতা রবিউল ইসলাম রাফে, মাওলানা মাহবুবুল আলম, গাজী মুরাদ হোসেন, গাজী মিজানুর রহমান, আলফাত হোসেন লিটন, মাওলানা মাসুম বিল্লাহ, মোঃ কামরুজ্জামান, মোঃ নজরুল ইসলাম, ইসমাইল হোসেন দুলাল, যুবনেতা মুফতী আহম আব্দুর রহমান মিয়াজী, মুফতী ফজলুল হক, যুবনেতা মোঃ ইমরান হোসেন মিয়া, আব্দুর রশিদ, যুবনেতা এসকে নাজমুল হাসান, শ্রমিকনেতা আবুল কালাম আজাদ, মাওলানা ইলিয়াস হুসাইন, মোহাম্মদ রেজাউল করিম, মোহাম্মদ ইব্রাহিম, ছাত্রনেতা মুহাম্মাদ মঈন উদ্দিন, আবু রায়হান, মুহাম্মাদ নাইম ইসলাম, মাহাদী হাসান মুন্না প্রমুখ।

সমাবেশ শেষে একটি বিশাল মিছিল নিউমার্কেট বায়তুন নুর, সেভ এন্ড সেভ এর সামনে থেকে সোনাডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ড মোড়ে গিয়ে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ ও মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হয়।

সম্পর্কিত